বিকাশমোবাইল ব্যাংকিং

একটি এনআইডি দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট খোলা যায় এবং কেন?

বিকাশ একাউন্ট নেই ? এখন এই রকম পরিবার খুজেই পাওয়া যাবে না । প্রায় সব ঘরেই বিকাশ একাউন্ট আছে। গ্রামাঞ্চলে এখন মোবাইল ব্যাংকিং ব্যাপক জনপ্রিয় ও বিকাশ। এর পিছনে অন্যতম মুল কারন হল এর সহজপ্রাপ্যতা  কিন্তু প্রশ্ন হলো, একটা এনআইডি দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট খোলা যায়? হ্যাঁ, এটি খুবই সাধারন একটি প্রশ্ন, অনেকের কাছে এটি আবার সমস্যার কারণ। চলুন, এব্যাপারে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

যাদের বিকাশ একাউন্ট নেই তারা এখান থেকে বিকাশ একাউন্ট খুলে নিন

 

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট খুলতে এনআইডি কার্ড কেন লাগে?

বহুল জনসংখ্যার দেশ বাংলাদেশে যেমন সিম বেবহারকারি অনেক তেমনি বিকাশ বেবহারকারী অনেক। অপরদিকে বাংলাদেশের জনসংখ্যা প্রায় ১৮ কোটি। সবার জন্য এনআইডি নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। তাই এক জনের সিম আরেকজনও ব্যবহার করে। তাই উক্ত সিমে কোন বিকাশ অ্যাকাউন্ট থাকলে তার মালিক কে সেটা খুঁজে পাওয়া খুবই ঝামেলার। আপনারা তথ্যটি পড়ছেন সারগো আইটি নিউজে। তাছাড়া বিকাশের মাধ্যমে অনেকেই বিভিন্ন ভাবে অবৈধ লেনদেন হয়ে থাকে। এমনকি বিভিন্ন সময় হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে বিকাশ থেকে টাকা চুরিও হয়ে থাকে।
এসব অবৈধ কার্যকলাপ ঠেকানোর জন্য আইডি কার্ড বা NID card দিয়ে একাউন্ট খোলা জরুরি। এতে করে একাউন্টের প্রকৃত মালিককে সহজেই খুঁজে পাওয়া সহজ হয়ে যায়। যার ফলে প্রতারণা এড়ানো অনেকটাই সম্ভব হয়। কোন আইনি জটিলতা থাকলে সেটা সহজেই মিটমিট করা যায়।

প্রশ্নঃ একটা এনআইডি দিয়ে একটি একাউন্ট কেন?

বিকাশ একাউন্টের জন্য আইডি কার্ড প্রয়োজনীয়তা আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি। কিন্তু ব্যাপারটা হলো কেন শুধুমাত্র একটি বিকাশ একাউন্টই খোলা যাবে?
মূলত যারা বিকাশ প্রতারণা করে থাকে তাদেরই একাধিক অ্যাকাউন্ট থাকে। তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে মানুষের সাথে প্রতারণা করে থাকে এবং মানুষের টাকা হাতিয়ে নেয়।
সাধারনত একটা বিকাশ একাউন্ট দিয়েই সব ধরণের লেনদেন এমনকি অনলাইন লেনদেনও করা সম্ভব। তাই বাস্তবে একাধিক একাউন্ট এর কোন প্রয়োজনই নেই। অর্থাৎ মূলত প্রতারণার ঠেকাতেই বিকাশ সহ সকল মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিসে একটি এনআইডি দিয়ে কেবল একটি মাত্র একাউন্ট খোলার সিস্টেম রয়েছে। এই বিষয়ে কাস্টমার কেয়ারে কথা বলেও একই বিষয় সুনিশ্চিত হওয়া গেছে । আমরা এখনে একটি স্কিনশট ও দেখালাম, দেখে নিনঃ
bkash nid ss
তাই আমরা যখন বিকাশ একাউন্ট খুলবো তখন অবশ্যই আমাদের রেজিস্ট্রেশন করা সিম থেকে আমাদের নিজ এনআইডি আইডি কার্ড দিয়েই একাউন্ট খুলবো। কারণ, যদি অন্য কারো এনআইডি দিয়ে একাউন্ট খুলি তখন যদি বিকাশ একাউন্ট এ কোন সমস্যা হয়। তাহলে ওই ব্যক্তিকে ছাড়া বিকাশ একাউন্টের সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। যেটা খুবই ঝামেলার এবং ভোগান্তির।

প্রশ্নঃ এনআইডি দিয়ে একটি একাউন্ট থাকার কারণে নতুন একাউন্ট খুলতে পারছেন না?

আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষেরই সাধারনত একাধিক সিম রয়েছে। ধরুন আপনার একটি সিমে বিকাশ একাউন্ট আছে। কিন্তু পরবর্তীতে অন্য সিমে বিকাশ একাউন্ট করার দরকার হতে পারে। জেহুতু আপনি একাধিক বিকাশ একাউন্ট রাখতে পারবেন না। তখন কি করবেন?
আপনি খুব সহজেই আপনার আগের বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে দিতে পারেন। এজন্য আমাদের বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়মকানুন সম্পর্কিত পোস্ট টি দেখুন। সেখানে দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী আগের বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে দিন এবং নতুন সিমে আপনার NID দিয়ে একাউন্ট খুলে নিন।
আরো পড়ুনঃ  এই ডিভাইসটি বিকাশ অ্যাপ সমর্থিত নয় - রুট করা ফোনে বিকাশ এপ

আশা করি, একটা এনআইডি দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট খোলা যায় এবং কেন? এই বিষয়ে আপনারা পূর্ণাঙ্গ ধারণা পেয়েছেন।
পোষ্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করতে পারেন।
আমাদের ফেসবুক পেজঃ https://www.facebook.com/SargoIT
ফেসবুক গ্রুপঃ https://www.facebook.com/groups/sargoit
ইন্সট্রাগ্রাম পেজঃ https://www.instagram.com/sargoit/
টুঁইটার পেজঃ https://twitter.com/sargoit
কোনো প্রশ্ন থাকলে নির্দ্বিধায় কমেন্ট করতে পারেন।

সারগো আইটি নিউজ

টেক ও প্রযুক্তির সকল তথ্য সকল মানুষের সাথে শেয়ার করা এবং অনলাইনে নিরপত্তা নিশ্চিত করাই সারগো আইটি নিউজের মূল লক্ষ্য । তাই টেক ও প্রযুক্তির সকল তথ্য জানার জন্য নিয়মিত আমাদের ব্লগে চোখ রাখুন এবং বিভিন্ন আপডেট ই-মেইলে পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাবস্ক্রিপশন অন করে রাখুন।
Back to top button

Adblock Detected

Please Disable your AdBlocker